ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য গুলি আলোচনা করো।

    দ্বাদশ শ্রেণীর রাষ্ট্রবিজ্ঞান থেকে যে সকল প্রশ্ন গুলি পরীক্ষাতে আসার জন্য গুরুত্বপূর্ণ সেই সকল প্রশ্ন গুলির উত্তর এখানে যথা যথ ভাবে আলোচনা করা হলো। এখানে আমরা পর পর উত্তর গুলিকে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। এখানে ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য গুলি আলোচনা করো, এই প্রশ্নটির উত্তর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।


ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য গুলি আলোচনা করো।

    ভারতীয় গণতন্ত্রের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হল বিচার বিভাগ। যদিও ভারতবর্ষের সংবিধান রচয়িতারা ভারতবর্ষের বিচার বিভাগকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের মতো শক্তিশালী আবার গ্রেট ব্রিটেনের বিচার বিভাগের মত ক্ষমতাহীন সংস্থায় পরিণত করতে চাননি বরং তারা এই দুই দেশের বিচার ব্যবস্থার মধ্যবর্তী স্থানে ভারতবর্ষের বিচারব্যবস্থাকে স্থান দিতে চেয়েছেন।


ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য 

    ভারতীয় বিচারব্যবস্থার যে সমস্ত বৈশিষ্ট্যগুলি আছে সেগুলি হল,যথা —

অখন্ড বিচার ব্যবস্থা :-   ভারতীয় বিচারব্যবস্থার প্রথম ও প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো অখন্ড বিচার ব্যবস্থা। এই অখন্ড বিচার ব্যবস্থার সর্বোচ্চ স্তর রয়েছে সুপ্রিমকোর্ট এবং সর্বনিম্ন স্তরে রয়েছে ন্যায় পঞ্চায়েত এবং অঙ্গরাজ্য গুলির জন্য রয়েছে হাইকোর্ট।


যুক্তরাষ্ট্রীয় আদালতের অস্তিত্ব :-   ভারতীয় বিচারব্যবস্থার আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো যুক্তরাষ্ট্রীয় আদালতের উপস্থিতি। সুপ্রিমকোর্টকে যুক্তরাষ্ট্রীয় আদালত বলা হয় তাই সুপ্রিমকোর্টকে সংবিধানের রক্ষাকর্তা, ব্যাখ্যা কর্তা, অভিভাবক ও নাগরিকদের মৌলিক অধিকারের রক্ষাকর্তা বলা হয়। এছাড়াও সুপ্রিম কোর্ট রাষ্ট্রপতির পরামর্শদাতা হিসেবে বিবেচিত হয়।


বিশেষ আদালতের বৈশিষ্ট্য :-  ভারতবর্ষের বিচারকার্য নির্দিষ্ট কতগুলি ক্ষেত্রে বিশেষ ধরনের বিবাদের মীমাংসার জন্য বিশেষ ধরনের আদালত ব্যবস্থা আছে। যেমন— শিল্পক্ষেত্রে শ্রমিক-মালিক বিরোধের নিষ্পত্তির জন্য ভারতবর্ষে শিল্প আদালত আছে, এছাড়াও প্রশাসনিক ক্ষেত্রে প্রশাসনিক আদালত আছে।


লোক আদালতের অস্তিত্ব :-   সাম্প্রতিককালে ভারতীয় বিচার ব্যবস্থায় আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো লোক আদালতের অস্তিত্ব। এই লোক আদালত পথ দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের দাবি এবং বিবাহ সম্পর্কিত দ্রুত মীমাংসা করে। কিন্তু ফৌজদারি বিবাদের কোনো মীমাংসা করে না।


স্বাধীন ও নিরপেক্ষ বিচার ব্যবস্থা :-  ভারতীয় বিচার ব্যবস্থায় বিচারপতিরা যাতে স্বাধীন ও নিরপেক্ষভাবে বিচার কার্য সম্পাদন করতে পারে সেজন্য সংবিধানে কতগুলি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যেমন— বিচারপতিদের অপসারণ সংক্রান্ত বিধিব্যবস্থা,অবসর গ্রহণের পর কোন আদালতে আইনজীবী হিসেবে কাজ করা যাবেনা, বিচারপতিদের রায়ের যুক্তিকতা নিয়ে কোন প্রশ্ন পার্লামেন্টের ক্ষমতার বাইরে রাখা ইত্যাদি।


প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণ :-   ভারতীয় যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতা স্বতন্ত্রীকরণ নীতি পুরোপুরি অনুসৃত না হওয়ায় বিচার বিভাগের ওপর প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণ বর্তমান লক্ষ্য করা যায়। তাই সুপ্রিম কোর্ট ও হাইকোর্টের বিচারপতি নিয়োগে শাসন বিভাগের নিয়ন্ত্রণকে একেবারে এড়িয়ে যাওয়া যায় না।

ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য গুলি আলোচনা
ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য


অভিন্ন বিধি ব্যবস্থার প্রচলন :-   ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো সমগ্র দেশের জন্য অভিন্ন বিধি ব্যবস্থার প্রচলন। তাই ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল এবং অঙ্গরাজ্য গুলিতে কোন পৃথক দেওয়ানি ও ফৌজদারি আইনের অস্তিত্ব দেখা যায় না।


ব্যয়বহুল বিচার ব্যবস্থা :-   ভারতীয় বিচারব্যবস্থা অত্যন্ত ব্যয়বহুল হওয়ায় জন্য সাধারণ মানুষের পক্ষে এই বিচার ব্যবস্থার মাধ্যমে উপকৃত হওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। তাই এখানে দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলার দরুন উকিল ব্যারিস্টার দক্ষিণা বাবদ প্রচুর অর্থ ব্যয় হয়, এই কারণে দরিদ্র মানুষের জন্য বিনা পয়সায় সরকারি আইনের সাহায্যের ব্যবস্থা করা হয়।


বিচার বিভাগীয় সক্রিয়তা :-   ভারতীয় বিচার ব্যবস্থার অন্যতম মৌলিক বৈশিষ্ট্য হলো বিচার বিভাগীয় সক্রিয়তা। ভারতীয় বিচার বিভাগ এই বিচার বিভাগীয় সক্রিয়তার মধ্যে দিয়ে আইন বিভাগ ও শাসন বিভাগের ক্ষমতার বাড়াবাড়ি তথা স্বেচ্ছাচারিতাকে প্রতিহত করতে উদ্যোগী ভূমিকা গ্রহণ করে।


মন্তব্য :-  সুতরাং,আমরা দেখতে পাচ্ছি যে ভারতীয় বিচারব্যবস্থার বেশ কিছু নিজস্ব বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে সামঞ্জস্য বজায় রেখে ভারতীয় বিচারব্যবস্থা বর্তমানে অতি সক্রিয়তা ও প্রগতিশীল ভূমিকা পালন করার মধ্য দিয়ে বিশিষ্ট মহিমা ও অনুপম বিশেষত্ব লাভ করেছে।


Political Science Question & Answere